শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

Translator
Translate & English
সংবাদ শিরোনাম
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

লাইলাতিন নিছফি মিন শা’বান তথা পবিত্র শবে বরাত ।

১৪ই শা’বান দিবাগত রাতটি হচ্ছে পবিত্র শবে বরাত বা বরাতের রাত্র। খোদা ,ফিরিশতা, পীর ছাহেব, নামায,রোযা, শবে বরাত ইত্যাদি ফার্সী শব্দ যা হুবুহু বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে বা বহুল প্রচলিত। ফার্সীতে শব অর্থ রাত্রি এবংবরাত অর্থ ভাগ্য বা মুক্তি। সুতরাং শবে বরাত মানে হল ভাগ্য রজনী বা মুক্তির রাত। পবিত্র কুরআন শরীফে লাইলাতুম মুবারকাহ, পবিত্র হাদীস শরীফে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান ফার্সীতে শবে বরাত এবং যা বাংলায় শা’বানের মধ্য রাত্রি, কেউ কেউ আবার ভাগ্য রজনীও বলে থাকেন। মূলতঃ শবে বরাত এবং এর ফযীলত কুরআন শরীফ এ আয়াত শরীফ এবং অসংখ্য হাদীছ শরীফ দ্বারা প্রমাণিত। কুরআনশরীফ এ শবে বরাতকে লাইলাতুম মুবারাকাহ বা বরকতময় রাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। আর হাদীছ শরীফ এ শবেবরাতকে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শা’বান মাসের মধ্য রাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি কুরআন শরীফ এ ইরশাদ করেন, ٢﴾ إِنَّا أَنزَلْنَاهُ فِي لَيْلَةٍ مُّبَارَ‌كَةٍ ۚ إِنَّا كُنَّا مُنذِرِ‌ينَ ﴿٣﴾ فِيهَا يُفْرَ‌قُ كُلُّ أَمْرٍ‌ حَكِيمٍ ﴿٤﴾ أَمْرً‌ا مِّنْ عِندِنَا ۚ إِنَّا كُنَّا مُرْ‌سِلِينَ ﴿٥﴾ رَ‌حْمَةً مِّن رَّ‌بِّكَ ۚ إِنَّهُ هُوَالسَّمِيعُ الْعَلِيمُ) অর্থঃ শপথ প্রকাশ্য কিতাবের! নিশ্চয়ই আমি বরকতময় রজনীতে কুরআন নাযিল করেছি। নিশ্চয়ই আমিই সতর্ককারী।আমারই নির্দেশক্রমে উক্ত রাত্রিতে প্রতিটি প্রজ্ঞাময় বিষয়গুলো ফায়সালা হয়। আর নিশ্চয়ই আমিই প্রেরণকারী।” (সূরা দু’খান,আয়াত শরীফ ২-৫) কেউ কেউ বলে থাকে যে, “সূরা দু’খানের উল্লেখিত আয়াত শরীফ দ্বারা শবে ক্বদর-কে বুঝানো হয়েছে। কেননা উক্ত আয়াতশরীফ এ সুস্পষ্টই উল্লেখ আছে যে, নিশ্চয়ই আমি বরকতময় রজনীতে কুরআন নাযিল করেছি……..। আর কুরআন শরীফ যেক্বদরের রাতে নাযিল করা হয়েছে তা সূরা ক্বদরেও উল্লেখ আছে ।” এ প্রসঙ্গে মুফাসসির কুল শিরোমণি রঈসুল মুফাসসিরীন বিশিষ্ট সাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুতিনি স্বীয় তাফসীরে উল্লেখ করেন,” মহান আল্লাহ পাক তিনি লাইলাতুম মুবারাকাহ বলতে শা’বান মাসের মধ্য রাত বা শবেবরাতকে বুঝিয়েছেন। মহান আল্লাহ পাক তিনি এ রাতে প্রজ্ঞাময় বিষয়গুলোর ফায়সালা করে থাকেন।” (ছফওয়াতুত তাফাসীর,তাফসীরে খাযীন ৪র্থ খন্ডঃ ১১২ পৃষ্ঠা, তাফসীরে ইবনে আব্বাস,তাফসীরে মাযহারী ৮ম খন্ডঃ ৩৬৮ পৃষ্ঠা, তাফসীরে মাযহারী১০ম খন্ড, তাফসীরে ইবনে কাছীর, তাফসীরে খাযিন, বাগবী, কুরতুবী, কবীর, রুহুল বয়ান, আবী সাউদ, বাইযাবী, দূররেমানছূর, জালালাইন, কামলালাইন, তাবারী, লুবাব, নাযমুদ দুরার, মাদারিক) লাইলাতুম মুবারাকাহ দ্বারা শবে বরাতকে বুঝানো হয়েছে তার যথার্থ প্রমাণ সূরা দু’খানের ৪ নম্বর আয়াত শরীফ فِيهَا يُفْرَقُ كُلُّأَمْرٍ حَكِيمٍ। এই আয়াত শরীফ এর يُفْرَقُ শব্দের অর্থ ফায়সালা করা। প্রায় সমস্ত তাফসীরে সকল মুফাসসিরীনে কিরামগণ يُفْرَقُ(ইয়ুফরাকু) শব্দের তাফসীর করেছেন ইয়ুকতাবু অর্থাৎ লেখা হয়, ইয়ুফাছছিলু অর্থাৎ ফায়সালা করা হয়, ইয়ুতাজাও ওয়াযূঅর্থাৎ বন্টন বা নির্ধারণ করা হয়, ইয়ুবাররেমু অর্থাৎ বাজেট করা হয়, ইয়ুকদ্বিয়ু অর্থাৎ নির্দেশনা দেওয়া হয় । কাজেইইয়ুফরাকু -র অর্থ ও তার ব্যাখার মাধ্যমে আরো স্পষ্টভাবে বুঝা যায় যে, লাইলাতুম মুবারাকাহ দ্বারা শবে বরাত বা ভাগ্যরজনীকে বুঝানো হয়েছে। যেই রাত্রিতে সমস্ত মাখলুকাতের ভাগ্যগুলো সামনের এক বছরের জন্য লিপিবদ্ধ করা হয়, আর সেইভাগ্যলিপি অনুসারে রমাদ্বান মাসের লাইলাতুল ক্বদর বা শবে ক্বদরে তা চালু হয়। এজন্য শবে বরাতকে লাইলাতুত্ তাজবীজঅর্থাৎ ফায়সালার রাত্র এবং শবে ক্বদরকে লাইলাতুল তানফীয অর্থাৎ নির্ধারিত ফায়সালার কার্যকরী করার রাত্র বলা হয়।(তাফসীরে মাযহারী,তাফসীরে খাযীন,তাফসীরে ইবনে কাছীর,বাগবী, কুরতুবী,রুহুল বয়ান,লুবাব) সুতরাং মহান আল্লাহ পাক তিনি যে সুরা দু’খান-এ বলেছেন, “আমি বরকতময় রজনীতে কুরআন শরীফ নাযিল করেছি” এরব্যাখ্যামুলক অর্থ হল “আমি বরকতময় রজনীতে কুরআন শরীফ নাযিলের ফায়সালা করেছি”। আর সুরা ক্বদর-এ “আমি ক্বদরেররজনীতে কুরআন শরীফ নাযিল করেছি ” এর ব্যাখ্যামুলক অর্থ হল “আমি ক্বদরের রজনীতে কুরআন শরীফ নাযিল করেছি”। বিস্তারিত..

আন্তর্জাতিক মানের পবিত্র কোরআন প্রদর্শনী

ঢাকার ৪নং বকশী বাজারস্থ আহমদিয়া মুসলিম জামাত, বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মাসব্যাপী বহু ভাষায় অনুদিত পবিত্র কুরআন প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়, এটি চলবে আগামী ১০ মে ২০১৯ পর্যন্ত। প্রথম বারের মতো

বিস্তারিত..

আগামীকাল ‘পবিত্র শাবান মাসের চাদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তি’ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন।

বিশেষ ঘোষণা:আগামীকাল ‘পবিত্র শাবান মাসের চাদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তি’ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন। স্থান : রিপোর্টার্স ইউনিট, সেগুনবাগিচা, ঢাকা সময় : দুপুর ৩:০০ আয়োজক: রুইয়াতে হিলাল

বিস্তারিত..

ভুল তারিখে পবিত্র শবে বরাত পালনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ”

এর পক্ষ হতে – “বহু সংখ্যক প্রত্যক্ষদর্শী পবিত্র শা’বান শরীফ মাসের চাঁদ দেখা সত্ত্বেও ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক ভুলভাবে পবিত্র শা’বান শরীফ মাস গণনা এবং ভুল তারিখে পবিত্র শবে বরাত পালনের

বিস্তারিত..

খাগড়াছড়ি জেলার হাতিমুড়ায় পবিত্র শাবান শরীফ মাসের চাঁদ দেখা গিয়েছে

প্রতিনিধি:আজ শনিবার (০৬/০৪/২০১৯) সন্ধ্যা ৬:৩৫ মিনিটে খাগড়াছড়ির হাতিমুড়ায় ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র শাবান শরীফ মাসের চাঁদ দেখা গিয়েছে। আন্তর্জাতিক চাঁদ দেখা সংস্থা মাজলিসু রুইয়াতিল হিলাল এর খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি হাফিজ মুহম্মদ

বিস্তারিত..



Translate & English
Design & Developed BY ThemesBazar.Com