বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন

Translator
Translate & English
সংবাদ শিরোনাম
স্মরনে নবাবসিরাজউদ্দৌলা। হলো না সব বাংলার ঐতিহ্যবাহী নবাবি ব্যাপার স্যাপার। প্রধানমন্ত্রী:-সংসদে সত্যিকারের শক্তিশালী বিরোধী দল চেয়েছিলাম ৭ নম্বর বিপদ সংকেত মোংলা পায়রা বন্দরসহ ৯ জেলায় । নগরীতে আমিনুল হকের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল শ্রমেরমর্যাদা, ন্যায্যমজুরি, ট্রেডইউনিয়নঅধিকারওজীবনেরনিরাপত্তারআন্দোলনশক্তিশালীকরারদাবিনিয়েআশুলিয়ায়মেদিবসপালন । সোনারগাঁয়ে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করেছে স্থানীয়  প্রভাবশালী  মাদকব্যবসায়ী । জেলা খুলনার দাকোপে ব্রোথেলের নারীজাগরনী সংঘের সভানেত্রী রাজিয়া বেগম হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষলক্ষ টাকা। ঘু‌র্ণিঝড় ফ‌নি আঘাত আনতে পা‌রে ৪ মে, য‌দি বাংলা‌দে‌শে আঘাত হা‌নে ত‌বে্রে আক‌টি সিডর হ‌তে পা‌রে বাংলা‌দে‌শে।  গাজীপুরে ফ্রেন্ডস ট্যুরিজম আয়োজন করলো সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতার ।
গাজীপুরের ভূমি অধিগ্রহণ ক্ষতিপূরণের টাকার বিল উত্তোলনে জালিয়াতির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ ।

গাজীপুরের ভূমি অধিগ্রহণ ক্ষতিপূরণের টাকার বিল উত্তোলনে জালিয়াতির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ ।

সময়ের কন্ঠ রিপোটঃ গাজীপুরে ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলনে দলিল দস্তাবেজ টেম্পারিং জালিয়াত চক্রের অপকৌশলে লিপ্ত একটি চক্র। ভুয়া ক্ষমতা অর্পন (নাদাবী) দলিল সৃষ্টির অপরাধে জেল খাটা জালিয়াত চক্রের মূলহোতা উজ্জল সরকার নতুন করে ফাঁদ পেতেছে। প্রশাসনকে ভুল তথ্য দিয়ে জামিনে বের হয়ে মামলার বাদী ও স্বাক্ষীদের নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করছে। ষড়যন্ত্রের স্বীকার ভূক্তভোগী পরিবার নাদিম গং জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। মৃত নুরুল ইসলাম সরকারের একমাত্র পুত্র এস.এম নাদিম বাদী হয়ে অফিসার ইনচার্জ সদর থানা গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ গাজীপুর বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

গত ২০ এপ্রিল অফিসার ইনচার্জ সদর থানা গাজীপুর মহানগরের ২৮নং ওয়ার্ডের দায়িত্বে নিয়োজিত এসআই পরিমলকে তদন্তের নির্দেশনা দেন।

সূত্রে জানা যায়, কালিয়াকৈর থানা ফুলবাড়িয়া এলাকার চিহ্নিত জালিয়াত চক্রের মূল হোতা মৃত ময়েজ উদ্দিনের পুত্র উজ্জল সরকার। তিনি পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রতারণা করে ওয়ারিশদের দলিল দস্তাবেজ জালিয়াতি, টেম্পারিং ও ভূয়া ক্ষমতা অর্পন নাদাবী নামা দলিল সৃষ্ঠির মত অনৈতিক কাজে লিপ্ত রয়েছে। শ্রীপুরের মাওনা মৌজার এস এ ১৮৪৫, আর.এস ১৬৪৬ নং খতিয়ানে ও এস.এ ৪৫৯৩, আর.এস ২২০৭৬ নং দাগের ২৮শতাংশ সম্পত্তির কাতে ২২.২১ শতাংশ সম্পত্তি যাহা গাজীপুর এল.এ কেস নং ১০/২০১৬-২০১৭ ইং মাধ্যমে অধিগ্রহণ করা হয়।

চতুর উজ্জল সরকার ফঁন্দি আটে কিভাবে অংশীদারিদের সত্ত্ব ও অধিগ্রহণের টাকা আত্মসাত করা যায়। গত ২/১২/২০১০ খ্রিস্টাব্দে কালিয়াকৈর উপজেলা ভূমি অফিস নামজারী জমাভাগ নথি নং ১১২/২০১০-১১ অর্থ বছরে ও ২০/১২/৮৪ খ্রিস্টাব্দে ১৩০৬২ নং দলিল মূলে ৫.০২ একর জমির স্থলে জালজালিয়াতি ও টেম্পারিং করে ৬.০২ একর সম্পত্তি উল্লেখ করেন। নিজের নামের প্রাপ্য অংশের তুলনায় অতিরিক্ত ১.০০ (এক) একর সম্পত্তি নামজারি করে নেন। অতি লোভী উজ্জল সরকার গাজীপুর জেলা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) শাখার ভূমি অধিগ্রহণের কিছু অসাধু কর্মচারীর ছত্র-ছায়ায় ক্ষতিপূরণের টাকা উত্তোলন ও আত্মসাতের মহাজাল বিস্তার করে।

এখানেই শেষ নয় প্রতারক জালিয়াত চক্রের মূল হোতা উজ্জল সরকার গংরা গাজীপুর কালিয়াকৈর উপজেলার ফুলবাড়িয়া এলাকার ময়েজ উদ্দিন সরকারের স্ত্রী নূরজাহান বেগম ও পুত্র নজরুল ইসলাম সরকার, সোহরাব সরকার এবং কন্যা রাহিমা সরকার (রেহেনা), রহিমা সরকার, পারুল সরকার, মিলি সরকার, মৃত নূরুল ইসলাম সরকারের স্ত্রী ডালিয়া ইসলাম, পুত্র এস.এম নাদিম সরকারের নাম স্বাক্ষর জালিয়াতি ও টেম্পারিং করে ক্ষমতা অর্পন (নাদাবী) নামা দলিল সৃষ্টি করে। গত ২১ এপ্রিল ২০১৮ গাজীপুর (শ্রীপুর) আদালতে রিভিও মোকাদ্দমা নং ৬৪/২০১৮ ও পরবর্তীতে গাজীপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব/এল.এ) শাখায় মিস মোকাদ্দমা নং ১৬/১৮ দাখিল করে। গাজীপুর এলএও কেস নং ১০/২০১৬-১৭ আইনজীবী ফিরোজ আল মামুনের মাধ্যমে বিল উত্তোলনের পায়তারা করে উজ্জল সরকার গং। বর্তমানে উক্ত সৃজিত জালজালিয়াতিপূর্ণ ক্ষমতা অর্পন (নাদাবী দলিল) টি মিস মোকদ্দমা নং ১৬/১৮ (এল.এ) মোকদ্দমার নথীর সহিত শামিল আছে বিধায় ১৬/১৮ (এল.এ) মোকদ্দমার মূল নথী তলব করা আবশ্যক মর্মে পক্ষাপোক্তকারীর নিয়োজিত আইনজীবীর মাধ্যমে বিগত ২৫/৩/২০১৯ ইং তারিখে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আদালত গাজীপুর মিস আপিল মোকাদ্দমা নং- ৬২/১৮ তে অন্তর্ভূক্ত করার জন্য আবেদন করিয়াছেন। জালজালিয়াতির মাস্টার উজ্জল সরকারের বিরুদ্ধে।

অপরদিকে এস.এম নাদিম সরকারের চাচা মোঃ দুলাল উদ্দিন সরকার বাদী হয়ে গাজীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সিআর মোকাদ্দমা ৯৮/২০১৭, ধারা ৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৪২০ দন্ড বিধি দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে পুলিশ ইনভেস্টিগেশন অব ব্যুরো ঘটনার সত্যতা প্রমাণ পেয়ে উজ্জল সরকার গংদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক পিবিআই এর তদন্ত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে উজ্জল সরকারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। থানাপুলিশ উজ্জল সরকারকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলখানায় প্রেরণ করেন। কিন্তু উজ্জল সরকার দুই মাস কারাবাস করে জামিনে মুক্ত হয়ে আবারও নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। সে মামলার বাদী ও স্বাক্ষীদেরকে নানা ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Translate & English
Design & Developed BY ThemesBazar.Com