রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন

মোগরাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানের দুর্নীতি ।

সময়ের কণ্ঠ রিপোর্টারঃ সোনারগাঁও উপজেলায় মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুর অনুমতিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে টিপুরদী এলাকায় অবস্থিত কেন্টাকি টেক্সটাইল লিমিটেড নামের একটি নির্মাণাধীন কারখানার বিষাক্ত বর্জ্য জোর পূর্বক নিস্কাশনের চেষ্টা করছে বলে জানা যায় । এ ব্যাপারে ক্যান্টাকি টেক্সটাইল লিমিটেডের ব্যবস্থাপক মোতালেব হোসেন সরকার ও আরেক কর্মকর্তা ফিরোজ দাবী করেন, কর্তৃপক্ষ প্রশাসনের ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুর অনুমতি নিয়েই বর্জ্য নিস্কাসনে পাইপ বসানোর জন্য কাজ করছে , এর প্রতিবাদে এলাকাবাসী গত ০২-০১-২০১৯ ইং বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানায়। তাদের দাবী বিষাক্ত তরল- বর্জ্য খালের পানিতে মিশে তা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। ফলে ২০ গ্রামের প্রায় ৫০ হাজার মানুষের জীবনযাত্রা হুমকির মুখে পড়বে। এমনিতেই চৈতী কম্পোজিটের দূষিত বর্জ্যে সোনারগাঁয়ের ফসলী জমিসহ প্রাকৃতিক পরিবেশেরর চরম বিপর্যয় হচ্ছে। এ তরল বর্জ্য মারিখালি নদীর সংযোগ খালের পানিতে মিশে এলাকার পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। কারখানার বর্জ্যে খালের পানিতে মিশে বিষাক্ত হয়ে মোগরাপাড়া, বাড়ি মজলিশ, গোহাট্রা, ফুলবাড়িয়া, ষোলপাড়া, দমদমা, কাবিলগঞ্জ, দলদার, লেবুছাড়া, ভাটিপাড়াসহ প্রায় ২০টি গ্রামের ৫০ হাজার মানুষের জীবনযাত্রা বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে। এমনিতেই বিষাক্ত পানি ব্যবহার করে এলাকার মানুষের পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। স্থানীয় প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে বারবার অভিযোগ করেও এলাকাবাসী কোনো ফলাফল পাননি। নতুন করে আবারো কেন্টাকির বর্জ্য নিস্কাশিত হলে এই এলাকায় কারখানার বিষাক্ত বর্জ্য মিশ্রিত খালের পানি মারাত্মক বিষাক্ত হয়ে পড়বে। এলাকার মানুষ পানিবাহিত নানান রোগে আক্রান্ত হয়ে পরবে । ফুলবাড়িয়া গ্রামের জুয়েল, রাজিব,বাধন,বিজয়, আসিক,অনিক,মাফুজ ও মিরাজ কবির সহ সত সত মানুষ জানান, সাধারন মানুষ অসহায় হয়ে আছে । আরো জাণাজায় মোগরাপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জের জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি হাজী সোহাগ রনি বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত তাদের ছত্রছায়ায় হালটের জায়গা আগেই দখল করে নিয়েছে ফ্রেশ কম্পানি । এখন অন্যের জমি দখলের পায়তারা করছে হালটের নামে । কারখানার দূষিত বর্জ্যে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে। কারখানা কর্তৃপক্ষ ফিরোজ ও মোতালেব অনুমতি ছাড়া ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি দখল করে তরল বর্জ্য নিস্কাসনের জন্য পাইপ বসানোর কাজ করছিল । এতে এলাকাবাসী একত্রে পাইপ বসানোর কাজে বাধা দিলে,ফিরোজ ও মোতালেব নামের কর্মকর্তা চেয়ারম্যান বাবুর অনুমতিতে ফসলি জমিতে কেন্টাকি টেক্সটাইলে বিষাক্ত তরল- বর্জ্য নিস্কাশন করে ফলে ফসলি জমি এখন পানিবন্দি । অসহায় গ্রামবাশীর কাছথেকে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও দলীয় প্রভাবসহ ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে ভোক্তভোগী গ্রামের হতদরিদ্র মানুষগুলোর ।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মোঃ বোরহান হাওলাদার(জসিম)

Design & Developed BY ThemesBazar.Com