শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
“অভিনন্দন” সাধারন শ্রমিকদের আতঙ্কিত হওয়া কারন নেই।  নাগরিক-হয়রানীর শিকার হচ্ছে খুলনা দৌলতপুর ভূমি অফিসে কুমিল্লায় মাটি চাপা দেয়া অজ্ঞাত তরুণের লাশ উদ্ধার দাকোপের বাজুয়ায় ধানের পালায় আগুন লাগিয়ে সাড়েনয় বিঘা  বিঘা জমির ধান্য নষ্ট করেছে দুর্বিত্তরা। সারা দেশে ৬৪ হাজার বাড়ি তৈরী করে দেবে আ.লীগ সরকার : ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান গত অর্থ বছরে চৌদ্দ কোটি টাকার মত রাজস্ব জমা দেওয়া হয়েছে- খুলনা দৌলতপুর সাবরেজিষ্টার কার্যালয় এ- বেনাপোলের পুটখালী সিমান্ত থেকে ভারতীয় পিস্তল উদ্ধার বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম সন্ত্রাস, মাদকদ্রব্য নির্মুল ও আইন শৃংখলা পরিস্থিতি উন্নতির ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় যশোর জেলার শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত হয়েছেন আইটি খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী জাপান ও বাংলাদেশ
মেঘালয়ের কয়লা খনিতে আটকা ১৫ শ্রমিক

মেঘালয়ের কয়লা খনিতে আটকা ১৫ শ্রমিক

১৩ দিন ধরে ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মেঘালয়ের একটি কয়লা খনিতে আটকা পড়ে রয়েছেন ১৫ শ্রমিক। কয়লা খনিতির পাশে থাকা একটি নদী ও অপর আরেকটি খনি থেকে সেখানে প্রতিনিয়ত পানি ঢুকতে থাকায় তাদের বেঁচে থাকার আশা ক্রমশ কমে আসছে। পুরনো এই খনিটি থেকে কয়লা আহরণ অবৈধ হলেও শ্রমিকরা তা উপেক্ষা করে শ্রমিকরা ওই খনির গভীরে প্রবেশ করেন। র‍্যাট হোল’ খনি নামে পরিচিত এ ধরণের খনি মেঘালয়ে অনেক রয়েছে। এসব খনি থেকে কয়লা আহরণ বিপদজনক। তবুও শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী কর্মীদের মাটির শত শত ফুট নিচে পাঠিয়ে কয়লা আহরণ করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। খবর রয়টার্সের।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতের জাতীয় দুর্যোগ প্রশমন বাহিনীর (এনডিআরএফ) প্রায় শতাধিক সদস্য খনি এলাকায় অবস্থান করছেন। দলটির কমান্ডার এসকে শাস্ত্রী বলেন, প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাবে ব্যহত হচ্ছে তাদের উদ্ধার কার্যক্রম। দেশটির কর্মকর্তারা বলেছেন, সেচ দিয়ে খনি থেকে বাইরে পানি ফেলা শুরু করলেও পাশের নদী ও খনি থেকে তা ভরাট হতে থাকায় রবিবার উদ্ধার অভিযান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এদিকে আটকে পড়া শ্রমিকদের উদ্ধারে ভারতের কেন্দ্রীয় কয়লা খনি বিষয়ক সংস্থার কাছে সাহায্যের আবেদন করেছে মেঘালয়ের রাজ্য সরকার। এ বিষয়ে জেকে বরাহ নামের এক কর্মকর্তা বলেন, বুধবার বিকালে কোল ইন্ডিয়া সাহায্যের আবেদন চায়। রাজ্য সরকার কোল ইন্ডিয়ার কাছে ১০টি পাম্প, পাইপ, জরিপ চালানোর জন্য সহকারি এবং প্রযুক্তিগত সহায়তা চেয়েছে।

মেঘালয়ের রাজধানী শিলং থেকে মেঘালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী কিরমন শিল্লা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, একমাত্র ঈশ্বরের আশীর্বাদ ও অলৌকিক কিছুই তাদের বেঁচে ফিরে আসতে সাহায্য করতে পারে।

১৩ ডিসেম্বর মেঘালয়ের খনিটিতে কাজ করতে যান ওই ১৫ শ্রমিক। তখন থেকেই মাটির নিচে আটকা পড়ে রয়েছেন তারা। খনিতে আটকা পড়া শ্রমিকদের মধ্যে সাতজন মেঘালয়ের পশ্চিম গারো পার্বত্য জেলার, পাঁচজন আসামের ও বাকি তিনজন প্রত্যন্ত লুমথারি গ্রামের বলে জানিয়েছে সেখানকার কর্তৃপক্ষ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মোঃ বোরহান হাওলাদার(জসিম)

Design & Developed BY ThemesBazar.Com