মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৬:০৪ অপরাহ্ন

অপমান বাজে রকমের দৃষ্টান্ত: হাইকোর্ট ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করতে লিগ্যাল নোটিশ

অপমান বাজে রকমের দৃষ্টান্ত: হাইকোর্ট ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করতে লিগ্যাল নোটিশ

ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার কারণ অনুসন্ধানে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। অতিরিক্ত শিক্ষা সচিবের নেতৃত্বাধীন কমিটিতে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিবের নিচে নয় এমন একজন প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ, মনোবিদ ও আইনবিদকে রাখতে বলা হয়েছে।

এ কমিটিকে একমাসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে এ কমিটিকে এ ধরনের দুর্ঘটনা প্রতিরোধের উপায় নির্ণয় করে একটি জাতীয় নীতিমালা প্রণয়ন করতে বলা হয়েছে।

বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আজ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন আজ আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের চার আইনজীবী। এ প্রতিবেদন দেখে আদালত আদেশ দেন। ব্যারিস্টার অনীক আর হক, ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, অ্যাডভোকেট আইনুন্নাহার সিদ্দিকা ও জেসমিন সুলতানা বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন।

আদালত অন্তবর্তীকালীন নির্দেশনার পাশাপাশি রুল জারি করেন। রুলে অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনার মতো এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধের উপায় নির্ণয় করে একটি জাতীয় নীতিমালা প্রণয়নের পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। সরকারসহ সংশ্লিষ্টদের চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আত্মহত্যার ঘটনা খুবই হৃদয় বিদারক

এর আগে আজ সকালে বিষয়টি অন্য একটি হাইকোর্ট বেঞ্চের (বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ) নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সাইয়েদুল হক সুমন। আদালতের সামনে বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখিয়ে আদেশ চান। এ সময় আদালত বলেন, একজন শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনা খুবই হৃদয় বিদারক। শিক্ষার্থীর সামনে বাবা-মাকে অপমানের ঘটনা বাজে রকমের দৃষ্টান্ত। এরপর আদালত ওই আইনজীবীকে একটি রিট আবেদন করার পরামর্শ দেন।

বরখাস্তে লিগ্যাল নোটিশ

এদিকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, সহকারী প্রধান শিক্ষক জিনাত আক্তার (ইতোমধ্যে বরখাস্ত) এবং তিনজন শিক্ষক প্রতিনিধিকে সাময়িক বরখাস্ত ও তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করার জন্য আইনি নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ। একইসঙ্গে নোটিশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির সকল শাখা প্রধানকে অব্যাহতি দিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নোটিশে বলা হয়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির গভর্নিং বোডির সভাপতির কাছে আজ দুপুরে হাতে হাতে এ নোটিশ পাঠানো হয় বলে সাংবাদিকদের জানান ইউনুছ আলী আকন্দ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Design & Developed BY ThemesBazar.Com