মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১২:৫৩ অপরাহ্ন

২৩৭ শতাংশ দর বেড়ে ইন্দো লেনদেন শুরু

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) প্রক্রিয়া সম্পন্ন করায় আজ বৃহস্পতিবার লেনদেন শুরু করেছে ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ২৩৭ শতাংশ বা ২৩.৭ টাকা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, সদ্য তালিকাভুক্ত কোম্পানিটি ‘এন’ ক্যাটাগরি আওতাভুক্ত হয়ে লেনদেন শুরু করেছে। ডিএসইতে কোম্পানিটির কোড হচ্ছে-১৮৪৯৪ ও ট্রেডিং কোড হচ্ছে “IBP”।

এর আগে বরাদ্দ পাওয়া শেয়ার গত ৪ অক্টোবর শেয়ারহোল্ডারদের বিও হিসাবে পাঠানো হয়েছে। এ লক্ষ্যে লটারির ড্র হয়েছিল গত ১১ সেপ্টেম্বর।

ডিএসইর ওয়েবসাইট সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে একযোগে লেনদেন শুরু করেছে ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস। এ সময় ডিএসইতে কোম্পানিটির প্রারম্ভিক মূল্য ছিল ৩৩ টাকা। কিন্তু কোম্পানিটির শেয়ার সর্বশেষ ৩৩.৭০ টাকায় লেনদেন হতে দেখা গেছে। অর্থাৎ ইস্যু মূল্য ১০ টাকা থেকে ২৩৭ শতাংশ বা ২৩.৭ টাকা বেড়ে লেনদেন হচ্ছে শেয়ারটি।

কোম্পানি সূত্রে জানা যায়, আইপিওতে কোম্পানিটির চাহিদার তুলনায় ৩৪.২৪ গুণ বেশি টাকার আবেদন জমা পড়ে। এর মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৪৫৬ কোটি ৮৫ লাখ ১০ হাজার টাকার, ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৪৮ কোটি ৪২ লাখ ৬৫ হাজার টাকার, প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৩০ কোটি ২৫ লাখ ৫০ হাজার টাকার, ইলিজিবল ইনভেস্টরদের কাছ থেকে (এমএফ অ্যান্ড সিআইএস) ১৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার এবং ইলিজিবল ইনভেস্টরদের কাছ থেকে (এমএফ অ্যান্ড সিআইএস ব্যতীত) ১৩৫ কোটি ৮৮ লাখ ২৫ হাজার টাকার আবেদন জমা পড়ে।

এর আগে আগস্ট মাসের ৯ থেকে ১৬ তারিখ পর্যন্ত কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ করা হয়।

প্রসপেক্টাস সূত্রে জানা যায়, পুঁজিবাজারে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করে। এ জন্য প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয় ১০ টাকা।

উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিট কারখানা, প্রশাসনিক ভবন, গুদাম ও গ্যারেজ ভবন নির্মাণ, মেশিনারিজ ক্রয় এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.২১ টাকা। এ সময় পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১২.৮৪ টাকা।

আইপিওতে কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড, ইবিএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং সিএপিএম অ্যাডভাইজরি লিমিটেড।

এর আগে গত ৩ অক্টোবর নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬১৩তম কমিশন সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Design & Developed BY ThemesBazar.Com