বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:০৯ অপরাহ্ন

নড়িয়ায় বোন-দুলাভাইয়ের অাক্রমনে দুই ভাই রক্তাক্ত

নড়িয়ায় বোন-দুলাভাইয়ের অাক্রমনে দুই ভাই রক্তাক্ত

শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃশুক্রবার দিবাগত রাত ১১টায় শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার ঘড়িসার ইউনিয়নে অাপন বোন নিজের স্বামী সন্তানদের নিয়ে দুই ভাইকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে বলে যানা গেছে।

অাহতরা ঘড়িসার ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড এর মোছলে উদ্দিন ছৈয়ালের ছেলে মোঃ করিম ছৈয়াল ও রহিম ছৈয়াল। গুরুতর অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।

নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে অাহতদের চিকিৎসাধীন অবস্থায় দেখা যায়। অাহত করিম ছৈয়ালের মাথা ফেটে বাম হাত গামছা দিয়ে পেঁচানো, এক্সরে রিপোর্টের অপক্ষায় স্বজন রা। অপর ভাই রহিম ছৈয়ালের বাম চোখ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, চোখের নিচে সেলাই করা অবস্থায় দেখা গেছে। হাসপাতাল কতৃপক্ষ বলেছেন, ভর্তি করতে অানার সময় প্রচুর রক্তাক্ত অবস্থায় দেখা গেছে।

অাহত করিম ছৈয়াল বলেন, অামার অাপন বোন সুজু বেগম ও তার স্বামী ইসমাইল মাঝি দীর্ঘদিন যাবৎ জমি সংক্রান্ত পারিবারিক কলহের জের ধরে অামাদের নানা ভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা করে অাসছে।
গত শুক্রবার অানুমানিক ১১টার সময় বাড়ি ফেরার পথে দেখি বাড়ির সামনের রাস্তায় অামার ছোট ভাই রহিম কে অামার বোন সুজু, তার স্বামী ইসমাইল মাঝি, বোনের মেয়ে অার ছেলে সুমন মাঝি সবাই মিলে মারধর করতেছে, ওর নাকমুখে রক্ত দেখে ভাইটারে রক্ষা করতে গেলে অামার বোনের ছেলে সুমন মাঝি পেছন থেকে হকিস্টিক দিয়ে মাথায় বাড়ি মারলে মাটিতে পইড়া যাই, তারপর ভাইগনা ভাগনী বোন অার দুলাভাই একসাথে পিটাতে থাকে দুইভাইকে। এরপর অার কিছুই মনে নাই, জ্ঞান ফিরলে দেখি
এলাকার লোকজন অামাদের হাসপাতালে নিয়া অাসছে, পরে শুনছি অামরা নাকি রাস্তায় পইড়া ছিলাম।

সকালে ঐ বোন সহ হামলাকারি সবাই হাসপাতালে অাইসা দেইখা গেছে, অার বলছে চিকিৎসার খরচ যা লাগে দিবো, কাউকে যেনো কিছু না কই, তাইলে ঝামেলা অারো বাড়বো। অামি বলছি থানায় অভিযোগ করছি, এখন অাইন ছাড়া অামি অার কারো কথা শুনবো না।

নড়িয়া থানা পুলিশের এস অাই অাশরাফ হাসপাতালে রোগীদের সাথে দেখা করেন, তথ্য সংগ্রহ করার সময় তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্ত চলছে, যেহেতু অাহতরা অভিযোগ  করেছেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করে অবশ্যই অাইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

এব্যাপারে অভিযুক্তদের কারো সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তাদেরকে মুঠোফোনেও পাওয়া যায়নি। এমন ঘটনায় বিচার দাবী করেছেন অাহতদের স্বজনরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Design & Developed BY ThemesBazar.Com